১০ হাজার কিলোমিটারের সর্বাধুনিক নৌপথ তৈরীর উদ্যোগ (ভিডিও)

0
229

রাকিব হাসান : দেশের নৌ পথকে সহজ, নিরাপদ, আরামদায়ক ও যাত্রীবান্ধব করতে এরই মধ্যে নেয়া হয়েছে নানা উদ্যোগ। এ খাতের উন্নয়নে যুক্ত করা হয়েছে আধুনিক সব প্রযুক্তি। আগামী ৫ বছরের মধ্যে ১০ হাজার কিলোমিটার নৌপথ খনন করা হবে বলে জানালেন নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালেদ মাহমুদ চৌধুরী।

পৃথিবীর তিন ভাগ জল আর এক ভাগ স্থল, তাই নৌ পথকে কেন্দ্র করেই বিশ্ব ব্যাপী গড়ে উঠেছে আধুনিক সমাজ ব্যবস্থা।

বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশও। স্বাধীনতা অর্জনের পর তৎকালীন নৌ ও সড়ক পরিবহন খাতের সমন্বয়ে সৃষ্টি হয় যোগাযোগ মন্ত্রণালয়। পরবর্তিতে যোগযোগ মন্ত্রণালয়কে পুনর্বিন্যাস করে বন্দর জাহাজ চলাচল ও অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠা করা হয়, যা পরে হয়ে যায় নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়।

৭৫ পরবর্তী সময়ে বেশিরভাগ সরকারের উদাসীনতার কারনে অনেকটাই মুখ থুবরে পরে এদেশের নৌ খাত।
তবে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতা গ্রহনের পর আবারও নজর দেন নৌ খাতের উন্নয়নে। গ্রহন করেন ব্যপক কর্মসূচী।

নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালেদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, এরই মধ্যে সারাদেশে ১০ হাজার কিলোমিটার নৌপথ খননের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। নদী ড্রেজিংয়ে আনা হয়েছে দুইশরও বেশী আধুনিক ড্রেজার ।

যাত্রী পরিবহনের পাশাপাশি পন্য পরিবহনেও যুক্ত হচ্ছে আধুনিক নৌযান। বিশ্বমানের নৌ ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে চট্রগ্রাম, পতেঙ্গা, শীতাকুন্ডের পাশাপাশি তৈরী করা হচ্ছে আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত পায়রা বন্দর ও মাতানবাড়ী পোর্ট।

রাজধানীকে কেন্দ্র করেও মাস্টার প্লান নেয়া হয়েছে। তৈরী হচ্ছে সার্কুলার রোড। নৌ পথকে কেন্দ্র করেই সম্প্রসারিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক ব্যবসা বাণিজ্য। সরকারে ভিশন ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে নৌখাতের ভূমিকা অপরিসীম।