শুভকামনায় ভাসলেন বলিউড শাহেনশাহ

93

বুধবার ৭৫ বছরে পা রাখলেন বলিউড শাহেনশাহ অমিতাভ বচ্চন। এটা শুধু তাঁর ক্ষেত্রেই নয়, ভারতীয় ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির ক্ষেত্রেও একটা মাইলস্টোন। যে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে তিনি জড়িয়ে আছেন দীর্ঘ ৪৮ বছর জুড়ে। সকাল থেকেই সহকর্মী, পরিচালক ও ‌আত্মীয়–‌‌বন্ধুদের শুভেচ্ছা ও শুভকামনায় ভেসে গেলেন অমিতাভ। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিও নিজের টুইটে তাঁকে শুভেচ্ছা জানালেন।

একসময়ে এই শহরেই কর্মজীবন শুরু করেছিলেন অমিতাভ বচ্চন। মমতা ব্যানার্জি মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর এই শহরে প্রত্যেকটা আন্তর্জাতিক ফিল্ম উৎসবেই বিশিষ্ট অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তিনি। বাংলা ছবি, ভারতীয় ছবি নিয়ে পেশ করেছেন নিজের সুচিন্তিত বক্তব্য। সেই মানুষটাকে তাঁর ৭৫তম জন্মদিনে
শুভেচ্ছা জানিয়ে নিজের টুইটে মুখ্যমন্ত্রী লিখলেন, ‘‌আ ভেরি হ্যাপি বার্থডে অমিতজি, সুস্থ শরীরে সুখে থাকুন আপনি।’‌

মমতা ব্যানার্জির পাশাপাশি তাঁকে শুভেচ্ছা জানালেন তাঁর একসময়ের সহকর্মী ও বন্ধু শত্রুঘ্ন সিনহাও। জানালেন, তাঁর সমসাময়িক অভিনেতা অমিতাভ বচ্চনের উজ্জ্বল সিনেমা যাত্রায় তিনি গর্বিত। জানিয়েছেন, ‘মুম্বাই ইন্ডাস্ট্রিতে ‌আমরা সমসাময়িক এবং বন্ধু। একসঙ্গেই আমরা প্রতিষ্ঠা পেতে লড়াই করেছি। অভিনেতা হিসেবে অমিতাভ বচ্চনের সাফল্যে আমি গর্বিত। যাঁরা এখন এই ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করছেন, সবার কাছেই তিনি অনুপ্রেরণা এবং আদর্শ। রাজেশ খান্নার পর তিনিই এই দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অভিনেতা। নিজের যোগ্যতাতেই তিনি ইন্ডাস্ট্রিতে সেরার জায়গাটা পেয়েছেন।’‌

শত্রুঘ্ন সিনহা আরও বলেছেন, ‘‌অমিতাভ বচ্চনের সামনে বেশ কিছু বাধা–‌‌বিঘ্ন এসেছে। অর্থনৈতিকভাবে এবং শারীরিকভাবে মাঝে–‌মাঝেই বিপর্যস্ত হয়েছেন। তবে প্রত্যেকবারই দ্বিগুণ সাফল্য নিয়ে ফিরে এসেছেন।’‌ ‘‌বম্বে টু গোয়া’‌, ‘‌ দোস্তানা’‌, ‘‌কালা পাত্থর’‌ ও ‘‌শান’‌ ছবিতে অমিতাভের এই সহ–‌‌অভিনেতার মন্তব্য, ‘‌মুম্বাই ইন্ডাস্ট্রির অনেক অভিনেতাই তো রাজনীতিতে এসেছেন। আমার মনে হয় অমিতাভ বচ্চন এই দেশের রাষ্ট্রপতি পদের জন্য অনায়াস প্রার্থী হতে পারেন।’‌

১৯৭৪–‌‌এ ‘‌রোটি কাপড়া অউর মকান’‌ ছবিতে মনোজ কুমারের সঙ্গে অভিনয় করেছিলেন অমিতাভ বচ্চন। এই বিশেষ দিনটিতে বর্ষীয়ান এই অভিনেতার স্মৃতিতে ভেসে উঠেছে অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে তাঁর প্রথম সাক্ষাতের কথা। ‘‌সাজন’ ছবির শুটিং চলার সময় অমিতাভ সেটে এসেছিলেন প্রযোজকের সঙ্গে দেখা করতে। ‘‌সেই প্রথম দিনই ওঁর মধ্যে লক্ষ্য করেছিলাম অভিনেতা সুলভ পর্যবেক্ষণ দক্ষতা এবং কাজের প্রতি ডেডিকেশন।’‌

বললেন, ‘‌এখন তো অমিতাভ বচ্চন জীবন্ত কিংবদন্তি। আজও অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে অভিনয়ের সেরাটা দিচ্ছেন। আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে দ্বিতীয় একটা অমিতাভ বচ্চন আর হবে না। ওঁর পরিবার সব সময় ওঁর পাশে দাঁড়িয়েছে।’‌
এবং ঋষি কাপুর। যাঁর সঙ্গে দীর্ঘ প্রায় ২৫ বছর পরে আবার অভিনয় করছেন অমিতাভ। ছবির নাম ‘‌১০২ নট আউট’‌। অমিতাভ ও ঋষি এই ছবিতে বাবা–‌‌ছেলের ভূমিকায়। এই ছবির পোস্টারেই ঋষি কাপুর লিখে দিলেন, ‘‌হ্যাপি বার্থডে অমিতজি। গড ব্লেস‌।’‌

ছবির নাম ‘‌ঠগস অফ হিন্দুস্থান’‌। কিংবদন্তি অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে এই ছবিতেই প্রথম অভিনয় আমির খানের। এখনও মুক্তি পায়নি সেই ছবি। তবে আমির জানিয়েছেন, ‘‌অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে অভিনয় করাটা অত্যন্ত আনন্দের ও গর্বের। সিনেমা হলে বচ্চন স্যারকে দেখাটা ছিল দুর্দান্ত অভিজ্ঞতা। তাঁর পর্দা–‌উপস্থিতি ছিল ম্যাজিকের মতো। সেই সময় একসঙ্গে তাঁর সাতটা ছবি বিভিন্ন হলে প্রদর্শিত হতো। সেই হিসেবে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন তিনি নিজেই। সে ছিল একটা সময়। বচ্চন স্যার যেভাবে তাঁর স্টারডমকে প্রত্যক্ষ করেছেন, তার ধারের কাছে আমরা আজও পৌঁছাতে পারিনি।’‌

‘‌১০২ নট আউট’‌ ছবির পরিচালক উমেশ শুক্লার কথায় উঠে এল তাঁর ছবিতে অমিতাভ বচ্চনের প্রসঙ্গ। বললেন, ‘‌আজও প্রত্যেকটা কাজের জন্য তাঁর যে আবেগ, তা অন্য কারও মধ্যে দেখিনি। প্রত্যেকটা সিনে অভিনয় করার আগে আজও প্রয়োজনীয় হোমওয়ার্ক সেরে আসেন তিনি। এমন–‌কি একটা শট ও‌কে হওয়ার পরেও তিনি সেই শটটা নিয়ে ভাবেন। যদি তাঁর সেই শট পছন্দ না হয়, পরিচালকের সঙ্গে আলোচনা করে আবার সেই শটটা নিতে অনুরোধ করেন।’‌

বিজয় নাম্বিয়ারের পরিচালনায় ‘‌ওয়াজির’‌ ছবিতে অভিনয় করেছিলেন অমিতাভ বচ্চন। জানিয়েছেন, তাঁর ছোট্ট ফিল্মি কেরিয়ারে তাঁর সঙ্গে কাজ করতে পেরে আমি তৃপ্ত ও সম্মানিত। আমি নিজেকে ভাগ্যবান বলে মনে করি। মনে আছে, ছবিতে একটা সিন ছিল, যেখানে হুইল চেয়ারের ওপর বসে আছেন অমিতজি। সেই অবস্থাতেই তিনি পেছন ফিরে নীল নীতিন মুকেশের দিকে তাকাবেন। সেই কাজটা তিনি এমনভাবে করলেন যে দেখা গেল, একদম চিত্রনাট্যের বর্ণনা মতোই তাঁর ছায়া নীলের মুখের ঠিক অর্ধেকটা জুড়ে। কাজের প্রতি তিনি এতটাই পারফেক্ট, এতটাই ডেডিকেটেড।’‌

প্রসেনজিৎ তাঁর টুইটে জানিয়েছেন, ‘‌আপনি আমাদের কাছে একটা অনুপ্রেরণা। আপনার সুস্থতা কামনা করি। প্রণাম।’‌ অভিনেতা ও তৃণমূলের বিধায়ক চিরঞ্জিত জানিয়েছেন, ‘‌প্রতিটি কাজের ক্ষেত্রেই তিনি অত্যন্ত সিরিয়াস এবং ফোকাসড। তাঁর সময়ানুবর্তিতাও অনুকরণযোগ্য।’‌

এ তো গেল ইন্ডাস্ট্রির কথা। অমিতাভ বচ্চনের ৭৫তম জন্মদিনে কলকাতায় তাঁর ফ্যান ক্লাব পথশিশুদের মধ্যাহ্নভোজে আপ্যায়িত করে। ‘‌তাঁর ইচ্ছা অনুযায়ীই এই ব্যবস্থা আমরা করেছি’‌— জানালেন কলকাতার অমিতাভ বচ্চন ফ্যান’‌স অ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারি সঞ্জয় পাতোড়িয়া। বন্ডেল রোডের কাছে এক মন্দির প্রাঙ্গণে এই উপলক্ষে কাটা হয় একটা বিশাল কেক। সঞ্জয় জানালেন, আমরা এই অনুষ্ঠানের যাবতীয় ছবি বচ্চন স্যরের কাছে পাঠাব। মন্দির চত্বরে ছিল অমিতাভ বচ্চনের বিশাল মূর্তি। লেখা ছিল ‘‌জয় শ্রী অমিতাভ’‌। একটা সিংহাসনে রাখা ছিল ‘‌অগ্নিপথ’‌ ছবিতে যেরকম সাদা জুতো অমিতাভ পরেছিলেন সেরকম এক জোড়া জুতো।

অমিত কুমার ফ্যান ক্লাব ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ কালচারাল রিলেশনস–‌‌এ আয়োজন করেছিল ‘‌বচ্চননামা’‌ শীর্ষক এক প্রদর্শনীর। যেখানে ছিল অমিতাভ অভিনীত ‘‌শোলে’‌, ‘‌পিঙ্ক’‌, ‘‌অনুসন্ধান’–‌সহ ৬০টি ছবির আসল পোস্টার। এই প্রদর্শনী চলবে ১৪ অক্টোবর পর্যন্ত।