দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী  

4

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কম্বোডিয়ায় তিনদিনের সফর শেষে দেশে ফিরেছেন। মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাকে বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট অবতরণ করে।

স্থানীয় সময় দুপুর পৌনে ২টায় প্রধানমন্ত্রী সফর সঙ্গীদের নিয়ে দেশের উদ্দেশে রওয়ানা দেন। এ সময় তাকে বিমানবন্দরে বিদায় জানান, কম্বোডিয়ার নারী বিষয়ক মন্ত্রী ইং কন্তা পভি, পররাষ্ট্র ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সহকারী মন্ত্রী ইতা সফিয়া এবং থাইল্যান্ডে নিযুক্ত বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূত এবং কম্বোডিয়ায় এ্যাক্রিডিটেড সাইদা মুনা তাসনিম।

প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে বাংলাদেশ ও কম্বোডিয়ার মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণের পাশাপাশি পর্যটন, কৃষি, বেসামরিক বিমান চলাচল, আইসিটি ও কারিগরি শিক্ষাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতা বৃদ্ধি সংক্রান্ত একটি চুক্তি এবং নয়টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।

শেখ হাসিনা বাংলাদেশ ও কম্বোডিয়ার মধ্যে আলোচনার নেতৃত্ব দেন। তিনি কম্বোডিয়ার রয়েল প্যালেসে রাজা নরদম সিহামনের দেওয়া রাজকীয় অভ্যর্থনা গ্রহণ করেন। তিনি কম্বোডিয়ান চেম্বারের সঙ্গে ব্যবসায়িক সংলাপে অংশগ্রহণ করেন এবং সেদেশের প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া নৈশভোজে যোগ দেন।

প্রধানমন্ত্রী নমপেনে কম্বোডিয়ার স্বাধীনতা স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন। তিনি এ সময় কম্বোডিয়ার সাবেক রাজা নরডম সিহানুক এর স্ট্যাচুতে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন।

কম্বোডিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও রাজকীয় দল ফনসিনপেকের সভাপতি নরদম রনারিধির সঙ্গে সৌজন্য স্বাক্ষাৎ করেন।

প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে বাংলাদেশ ও কম্বোডিয়ার মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণের পাশাপাশি পর্যটন, কৃষি, বেসামরিক বিমান চলাচল, আইসিটি ও কারিগরি শিক্ষাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতা বৃদ্ধি সংক্রান্ত একটি চুক্তি ও নয়টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।

শেখ হাসিনা বাংলাদেশ ও কম্বোডিয়ার মাঝে আলোচনার নেতৃত্ব দেন। তিনি কম্বোডিয়ার রয়েল প্যালেসে রাজা নরদম সিহামনের দেয়া রাজকীয় অভ্যর্থনা গ্রহণ করেন। তিনি কম্বোডিয়ান চেম্বারের সঙ্গে ব্যবসায়িক সংলাপে অংশগ্রহণ করেন এবং সেদেশের প্রধানমন্ত্রীর দেয়া নৈশভোজে যোগ দেন।