সমাজে প্রতিবন্ধীদের অনেক দুর্ব্যবহারের শিকার হতে হয়

2

শারমিন আজাদ:

একজন প্রতিবন্ধীকে তার জীবনের প্রতি পদে পদে হতে হয় বঞ্চণার শিকার। অথচ প্রতিবন্ধীদের সুরক্ষা আইন করে নিশ্চিত করা হয়েছে তাদের অধিকার।

তবে শিক্ষা জীবন থেকে শুরু করে সামাজিক জীবনে তাদেরকে পোহাতে হয় যন্ত্রণা। শত বাঁধা পেরিয়ে যদিও বা কেউ কেউ কর্মসংস্থানের চেষ্টা করেন।

তাদেরও পড়তে হয় নানা দুর্ভোগে। প্রতিবন্ধীদের প্রতি সামাজিক নানা অনিয়মের চিত্র সমাজের বিভিন্ন স্থানে দেখা যায়।

একজন বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী শিশুর সঙ্গে মা

শিশু মাত্রই চাই স্কুলে সঠিক শিক্ষা। আর শিশুটি যদি হয় বুদ্ধি প্রতিবন্ধী, তাহলে তো প্রয়োজন আরও নিবিড় পরিচর্যা। এমনই নিয়ম রয়েছে প্রতিবন্ধী সুরক্ষা আইনে। অথচ সহযোগিতার অভাবে প্রতিবন্ধী শিশুদের এগিয়ে যেতে হয় অদম্য মনোবল নিয়ে। সঙ্গী থাকেন শুধু বাবা-মা।

প্রতিবন্ধী সন্তানদের সমাজের কোনো স্থানেই গুরুত্ব দেওয়া হয় না বলে জানান পিতা মাতারা। প্রতিবন্ধী শিশুটি বড় হয়ে কর্মজীবনে প্রবেশ করলে সেখানে থাকার কথা বিশেষ কোটা। সেখানেও অনেক সময়ই বঞ্চিত তারা।

একজন শারীরিক প্রতিবন্ধী

শিক্ষায় বেশিদূর এগুতে পারেননি এমন অনেক শারীরিক প্রতিবন্ধীর একজন ইদ্রিস আলি। প্রতিবন্ধী হয়েও হকারি করে জীবীকা নির্বাহ করেন। সেখানে অনেক দুর্ব্যবহারের শিকার হতে হয় তাকে। ইদ্রিসের মতো একই অভিযোগ অনেকের।

প্রতিবন্ধীদের নিয়ে কাজ করে এমন প্রতিষ্ঠানও বলছে, এখনো সব অধিকার আদায় করতে পারছেন না বলে জানান প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক।

রিপোর্টার: শারমিন আজাদ

প্রতিবন্ধীরা সমাজে অবহেলিত হতে পারবে না, এমন দৃষ্টিভঙ্গী বর্তমান সরকারের। তারপরও কেন তার বাস্তবায়ন নেই? এমনটাই জানতে চান প্রতিবন্ধীরা।