Monday, July 26, 2021

MYTV Live

এসএসসি নভেম্বরে ও এইচএসসি ডিসেম্বরে; পরীক্ষা নেওয়া না গেলে বিকল্প মূল্যায়ন

করোনা পরিস্থিতিতে এ বছর শুধু তিনটি নৈর্বাচনিক বিষয়ের ওপর চলতি বছর এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়ার চেষ্টা করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

বৃহস্পতিবার ভার্চুয়াল এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, করোনো পরিস্থিতি অনুকূলে এলে সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচির অলোকে গ্রুপভিত্তিক শুধু তিনটি নৈর্বাচনিক বিষয়ের ওপর পরীক্ষার সময় ও পরীক্ষার নম্বর কমিয়ে এসএসসি ও সমমান এবং এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা নেওয়া হতে পারে। পরীক্ষার সম্ভাব্য সময় হচ্ছে এসএসসি ও সমমান এ বছরের নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে এবং এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ।

শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, গত বছর আমরা এসএসসি পরীক্ষার ফল দিতে গিয়ে যেভাবে সাবজেক্ট ম্যাপিং করেছি, সেই একই পদ্ধতি অনুসরণ করে এ বছর আবশ্যিক বিষয়গুলোর মূল্যায়ন করা হবে। এ ছাড়া উচ্চতর শিক্ষার ক্ষেত্রে যেহেতু বিষয়ভিত্তিক নৈর্বাচনিক  বিষয়ের মূল্যায়নের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে- অর্থাৎ যারা বিজ্ঞান বিভাগে আছে তাদের পদার্থ, রসায়ন, জীববিজ্ঞান কিংবা যাদের নৈর্বাচনিক বিষয় হিসেবে গণিত আছে, তাদের এই বিষয়গুলো মূল্যায়ন করা দরকার। কেননা পরবর্তী সময়ে উচ্চতর ক্ষেত্রে যারা বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে যাবে, তাদের কথা বিবেচনা করে এটা জরুরি।

ডা. দীপু মনি বলেন, গত বছরের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আমাদের যে অভিজ্ঞতা তাতে দেখেছি, নভেম্বর-ডিসেম্বর-জানুয়ারির দিকে সংক্রমণের হার অনেক কমে এসেছিল। আর এ বছর যেহেতু টিকা প্রদান শুরু হয়েছে। সারা দেশে এই টিকা প্রদান এখন চলবে এবং ব্যাপকভাবে রেজিস্ট্রেশন হচ্ছে, টিকাও এখন রয়েছে।

কাজেই আমরা আশা করছি, আগামী কয়েক মাসের মধ্যে ব্যাপক জনগোষ্ঠীর মধ্যে টিকা প্রদান করা সম্ভব হবে। তার ফলে এ বছরও নভেম্বর-ডিসেম্বরের দিকে দেশে সংক্রমণের হার হয়তো গত বছরের মতো বা তারও চেয়ে কমিয়ে আনা সম্ভব হবে। এ কারণে আমরা উল্লিখিত বিষয়ে পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

তিনি জানান, যদি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না হয়, তাহলে এসএসসির ক্ষেত্রে জেএসসি ও অ্যাসাইনমেন্ট এবং এইচএসসির ক্ষেত্রে জেএসসি, এসএসসি ও অ্যাসাইনমেন্টের ওপর ভিত্তি করে মূল্যায়ন করা হবে। আর কারিগরির ক্ষেত্রে নবম ও একাদশ শ্রেণির পরীক্ষাও মূল্যায়ন করা হবে।’

শিক্ষামন্ত্রী আরো জানান, ঈদুল আজহার পর পর এইচএসসির ফরম পূরণ অনলাইনে শুরু হবে। কোনো শিক্ষার্থীকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে হবে না। অল্প বিষয়ে পরীক্ষা নেয়া হবে, তাই ফিও কম নেয়া হবে। এ বিষয়ে বোর্ড থেকে নির্দেশনা জারি করা হবে।

তিনি জানান, এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ১২ সপ্তাহে ২৪টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। তারা প্রতি সপ্তাহে দুটি করে অ্যাসাইনমেন্ট জমা দেবে।  এইচএসসির পরীক্ষার্থীদের জন্য ৩০টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। প্রতিটি পত্রে ৫টি করে অ্যাসাইনমেন্ট করতে হবে। সপ্তাহে এসব শিক্ষার্থীরা দুটি অ্যাসাইনমেন্ট করবে। এর ফলে আগে যে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস দেওয়া হয়েছিল এর মাধ্যমে অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম শেষ করা হবে। তবে অতিরিক্ত বিষয়ে কোনো অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে না।

প্রশ্নের ধরন ও পরীক্ষার সময় নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, অর্ধেক সময়ে পরীক্ষা নেওয়া হবে অর্থাৎ তিন ঘণ্টার পরীক্ষা হবে দেড় ঘণ্টায়। আর প্রশ্নপত্র এখন যেভাবে বহুনির্বাচনী ও রচনামূলক হয়, সেভাবেই হবে।

তবে এ ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীরা প্রশ্ন বাছাই করার ক্ষেত্রে বেশি সুযোগ পাবে। যেমন আগে যেখানে ১০টি প্রশ্নের মধ্যে থেকে ৮টির উত্তর দিতে হতো, সেখানে এখন হয়তো সেই ১০টি প্রশ্নই থাকবে। তবে তার মধ্যে তিনটি বা চারটির উত্তর দিতে বলা হতে পারে। অর্থাৎ শিক্ষার্থীদের প্রশ্ন বেছে নেওয়ার সুযোগ বেড়ে যাবে। আর প্রতি বিষয়ে মোট নম্বর ১০০–এর বদলে ৫০ নম্বর করা হবে। পরে এই ৫০ নম্বরকে ১০০–তে রূপান্তর করে পরীক্ষার ফল দেওয়া হবে বলে জানান দীপু মনি।

Related Articles

Stay Connected

21,980FansLike
2,870FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

Latest Articles