Tuesday, September 28, 2021

MYTV Live

আগামী ১৫ বছরে পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাবে ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বিলুপ্তির শঙ্কায় উন্নয়নশীল দেশ

আগামী ১৫ বছরেই পৃথিবীর তাপমাত্রা বাড়বে ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস৷ এমন আশঙ্কার কথা জানিয়ে গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ প্যানেল আইপিসিসি৷

গবেষণায় দেখা যায়, এ শতকের শেষ নাগাদ পৃথিবীর উপরিভাগের তাপমাত্রা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধির যে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল, তা আগামী দেড় দশকেই পেরিয়ে যাবে৷ আইপিসিসি এমন একটি সময়ে তাদের গবেষণার ফল প্রকাশ করেছে, যখন পৃথিবীর অনেক দেশেই রেকর্ড তাপমাত্রা দেখা যাচ্ছে, তাপদাহে পুড়ে যাচ্ছে বনাঞ্চল৷ এ ছাড়া পৃথিবীর অনেক অঞ্চলেই দেখা দিচ্ছে অতিবৃষ্টি, বন্যা৷

প্রতিবেদনটি বলছে, জীবাশ্ম জ্বালানি পুড়িয়ে এবং গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন করে মানুষ পৃথিবীর তাপমাত্রা প্রাক-শিল্প যুগের চেয়ে এরই মধ্যে প্রায় ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়িয়ে ফেলেছে (০.৮ ডিগ্রি সে. থেকে ১.২ ডিগ্রি সে.)। এর অর্থ গড়ে প্রতি দশকে মানবসৃষ্ট কারণে পৃথিবীর তাপমাত্রা বেড়েছে ০.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। জুরিখভিত্তিক বিজ্ঞানী সোনিয়া জেনেফিরাটনে বলছেন, আমরা এরই মধ্যে জলবায়ু সংকটের মধ্যে পড়ে গেছি।

প্রতি ডিগ্রি তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণে অতিবৃষ্টির হার বাড়ে ৭ ভাগ। সেই সঙ্গে বাড়ে শক্তিশালী সাইক্লোনের হার৷ প্রতিবেদনটি বলছে, পৃথিবীর তাপমাত্রা আর ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়লে প্রতি শতকে দুই থেকে তিনবার ভয়ংকর অতিবৃষ্টির কবলে পড়বে পৃথিবী৷ প্রতি দশকে একবার প্রচণ্ড খরায় অধিকাংশ জমি শুকিয়ে যাবে এবং চারবার উর্বরতা হারাবে৷ হিট ওয়েভ বা তাপপ্রবাহের ঘটনা এরই মধ্যে বেড়েছে ২.৮ গুণ৷ আর এক ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা বাড়লে তা ৯.৪ গুণ বাড়বে এবং তাপমাত্রা বাড়বে ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলো নতুন এক সতর্কবার্তা দিয়েছে। তারা বলছে, জলবায়ু পরিবর্তন রোধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া না হলে এই দেশগুলো ‘বিলুপ্তির ঝুঁকিতে পড়বে’। ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলো মূলত উন্নয়নশীল দেশ।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, আইপিসিসির এই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই বৈশ্বিক উষ্ণায়নের কারণে পৃথিবীর একটি অংশ বসবাস–অযোগ্য হতে পারে। ফলে প্রতিবেদন প্রকাশের পর বিভিন্ন দেশের নেতারা নড়েচড়ে বসেছেন। আইপিসিসির এই প্রতিবেদনকে ‘বিশ্বকে জেগে ওঠার ডাক’ হিসেবে দেখছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

তবে এই প্রতিবেদন প্রকাশের পর কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে বেশ কিছু দেশ। মূলত জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ক্ষতির সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে এই দেশগুলো। এমন ঝুঁকিতে থাকা ৫০টি দেশের প্রতিনিধিত্ব করছেন মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদ। তিনি বলেন, ‘অন্য দেশগুলো কার্বন নিঃসরণ করছে। আর আমরা জীবন দিয়ে এর মূল্য পরিশোধ করছি।’

সমুদ্রপৃষ্ঠের কাছাকাছি থাকা দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম মালদ্বীপ। এই দেশের পরিস্থিতি উল্লেখ করে নাশিদ বলেন, মালদ্বীপের জন্য জলবায়ু পরিবর্তনের ফল হবে ধ্বংসাত্মক। এর ফলে দেশটি ‘বিলুপ্তির ঝুঁকিতে’ পড়বে বলেও মনে করেন তিনি।

Related Articles

Stay Connected

21,980FansLike
2,956FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

Latest Articles