MYTV Live

বাসা থেকে কাজ করলে বেতন কাটার ঘোষণা গুগলের

বিশ্বব্যাপী মহামারি পরিস্থিতিতে অনেক বহুজাতিক সংস্থা কর্মীদের ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ বা বাড়ি থেকে কাজ করাকে স্থায়ীভাবে গ্রহণ করেছে।

বিশ্বের অন্যতম প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান গুগল সিদ্ধান্ত নিয়েছে, স্থায়ীভাবে যারা বাসায় থেকে অফিসের কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তাদের বেতন থেকে কিছু অংশ কাটা হবে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বরাতে জানা গেছে, কর্মীদের বেতন হিসাব করতে ‘পে ক্যালকুলেটর’ নামে একটি বিশেষ ক্যালকুলেটর তৈরি করেছে গুগল। যার মাধ্যমে একজন কর্মী অফিস থেকে কত দূরে থাকেন, সেখানকার জীবন ধারনের খরচ কত, এ সব হিসাব করে নতুন বেতন ঠিক করা হবে।  

গুগলের এমন একটি ‘পে ক্যালকুলেটর’র স্ক্রিনশটও পেয়েছে বলে জানায় সংবাদ সংস্থা রয়টার্স।

বেতন কাটার বিষয়ে গুগলের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, কর্মীদের আবাসস্থলের ওপর ভিত্তি করে বেতনের বিষয় নির্ধারণ করা হয়। একজন কর্মী কোথা থেকে ডিউটি করেন এর ওপর ভিত্তি করে গুগল কর্মীদের বেতন দেয়।

বেতন কাটা প্রসঙ্গে রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, কর্মীরা বেতন কাটার খবরে অনেকই অফিসে যাওয়া আরম্ভ করেছেন। অনেকেই বিষয়টি জেনে নেতিবাচক মতামতও প্রকাশ করেন।

গত জুনে চালু করা গুগলের ‘ওয়ার্ক লোকেশন টুল’ অনুযায়ী এসব কর্মী যদি বাসায় বসে পূর্ণাঙ্গ দায়িত্ব পালন করেন, তাহলে তাদের বেতন শতকরা ১০ ভাগ কেটে নেয়া হতে পারে।

একজন কর্মী বাসায় বসে কাজের মাধ্যমকে বেছে নিয়েছিলেন। তিনি জানিয়েছেন, অফিসে যেতে তার দুই ঘণ্টা সময় ব্যয় হয়। এখন তিনি বেতন কাটার কথা জানতে পেরে অফিসে বসে কাজ করতে আগ্রহী।

তবে শুধু গুগলই নয়, সিলিকন ভ্যালির একাধিক তথ্য ও প্রযুক্তি সংস্থা কর্মীদের বেতন কমানোর পথে হেঁটেছে। এর মধ্যে রয়েছে ফেসবুক ও টুইটারও। এই দুই সংস্থার যে কর্মীরা ওয়ার্ক ফ্রম হোম নিয়ে অপেক্ষাকৃত কম খরচ হয়, এমন অঞ্চলে সরে গিয়েছেন, তাদের বেতনে কমছে। এদের দেখাদেখি রেডিট বা জিলোর মতো ছোট তথ্য প্রযুক্তি সংস্থাও এই পথে হেঁটেছে।  

Related Articles

Stay Connected

22,878FansLike
3,593FollowersFollow
20,300SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

Latest Articles