MYTV Live

র‌্যাবের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ কল্পনাপ্রসূত: আইনমন্ত্রী

বাংলাদেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এবং সংস্থাটির সাবেক ও বর্তমান সাত কর্মকর্তার ওপর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, এটা অত্যন্ত দুঃখজনক।

তিনি বলেন, যারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে, যারা আইনের শাসনে বিশ্বাস করে, তাদের একটা কর্তব্য থাকে, সেটা হচ্ছে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করা এবং যাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়, তাদের আত্মপক্ষ বক্তব্য শোনার।

মন্ত্রী আরও বলেন, এটা দুঃখজনক যে, কোনো প্রকার আত্মপক্ষ সমর্থন করার সুযোগ না দিয়েই এমন বিজ্ঞপ্তি  প্রকাশ করা হয়েছে।

রোববার ঢাকায় বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে জেলা ও দায়রা জজ এবং মহানগর দায়রা জজদের ২৬তম জুডিসিয়াল এডমিনিস্ট্রেশন ট্রেনিং কোর্সের উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, আমি এটাও দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলতে চাই, যে সব দোষে র‌্যাব বা অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে দোষী করা হয়েছে তা ঠিক নয় এবং এটা কল্পনাপ্রসূত। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক বাংলাদেশে  বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের অভিযোগের বিষয়ে আনিসুল হক বলেন, বাংলাদেশে কোন বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড হয়নি।

১৯৭১ সালে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের দায়ে কারাদণ্ডপ্রাপ্ত দুজন আসামি যুক্তরাজ্যে পালিয়ে আছেন, তাঁদের ফিরিয়ে আনার বিষয়ে কী উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে—এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, দুদিন আগে তাঁর সঙ্গে ব্রিটিশ হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ হয়। সেখানে তিনি ওই দুজনকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনার দাবি জানালে ব্রিটিশ হাইকমিশনার তাঁদের ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক দাবি করতে বলেছেন। আইনমন্ত্রী জানান, ওই দুজনকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য আনুষ্ঠানিক দাবি জানানো হবে।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর অনুমতির বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘ওয়েট অ্যান্ড সি।’

এর আগে মামলাজট কমানোর ওপর গুরুত্বারোপ করে আইনমন্ত্রী বলেন, মানুষ বিচারের জন্য হাহাকার করছে। যখন তারা আদালতে বিচার পাবেন না, তখন কিন্তু বিচারের জন্য রাস্তায় নামবেন। আমরা কেউই এমন অবস্থা চাই না। মন্ত্রী মামলা নিষ্পত্তির হার বাড়াতে দুপুরে একঘন্টা বিরতি দিয়ে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত সময়কে যথাযথ কাজে লাগানোর তাগিদ দেন। 

Related Articles

Stay Connected

22,878FansLike
3,582FollowersFollow
20,300SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

Latest Articles