চার সমুদ্র বন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত

উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত লঘুচাপটি ঘণীভূত হয়ে নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এতে চার সমুদ্র বন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্কতা সংকেত এবং দক্ষিণাঞ্চলের নদী বন্দরগুলোকে ২ নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।
আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, লঘুচাপের প্রভাবে সমুদ্র বন্দরগুলো, উত্তর বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। উপকূলীয় এলাকায় ২ থেকে ৪ ফুটের বেশি উচ্চতায় জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা রয়েছে। নিম্নচাপের প্রভাবে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে ভারি বৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়া রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি ধরণের বৃষ্টি হতে পারে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারগুলোকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

এদিকে, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপ ও জোয়ারের প্রভাবে ঝালকাঠি ও পটুয়াখালীতে প্রায় অর্ধশত গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। উপকূলীয় এলাকায় থেমে থেমে গুড়ি গুড়ি ও মাঝারি বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে।

ঝালকাঠির সুগন্ধা-বিষখালী নদীর পানি বিপদসীমার ২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। নদীর তীরের জনপদ ও চরঞ্চল দুই থেকে তিন ফুট পানির নিচে তলিয়ে গেছে। তলিয়ে গেছে জেলার নিম্নাঞ্চলের অন্তত ২০ টি গ্রাম। আমনের বীজতলা ও রোপা আমন পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্তের আশংকা করছেন কৃষকেরা।

পটুয়াখালীর শহরসহ, কলাপাড়ার ১৭গ্রাম, রাঙ্গাবালীর ৬ গ্রাম, মির্জাগঞ্জের ৪ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।