MYTV Live

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মতিয়া চৌধুরীর শ্রদ্ধা

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন জাতীয় সংসদের নব-মনোনীত উপনেতা মতিয়া চৌধুরী এমপি।

শুক্রবার বেলা ১১টায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তিনি।

এসময় মতিয়া চৌধুরী সংসদীয় গণতন্ত্রের ধারা অব্যাহত রাখতে সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

মতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘আমরা যখন রাজনীতিতে পা রেখেছি, তখন আমাদের সমস্ত ভূবন জুড়ে ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সারা পৃথিবীতে বঙ্গবন্ধুর নাম স্মরণীয়, বরণীয় এবং শ্রদ্ধার জায়গা রাখে।’

সংসদ থেকে পদত্যাগ করা বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘সংসদে আরও কয়েকজন আছেন যারা আওয়ামী লীগ করেন না, কিন্তু সংসদে আছেন। জাতীয় পার্টি এমনকি দুই একজন স্বতন্ত্র এমপিও আছেন। যারা পদত্যাগ করেছেন, তাদের সংখ্যা খুব বেশি না। তারা সংসদীয় গণতন্ত্রের ওপরে খুব একটা আস্থাশীল বলে মনে হয় না।’

মতিয়া চৌধুরী আরও বলেন, ‘৭১-এর পরে যে পার্লামেন্ট কন্টিনিউ করছে সেখানে সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত একা হয়েও যে ভূমিকা রেখেছেন এবং যতক্ষণ উনি কথা বলতে চাইতেন বঙ্গবন্ধু কিন্তু তাঁকে সেই কথা বলতে দিয়েছেন। তাহলে উনারা পারতেন না জনগণের বক্তব্য পৌঁছে দিতে? জনগণের ভোট নিয়ে, জনগণের প্রতিশ্রুতি রক্ষা না করে এভাবে পদত্যাগ করাটা কোনো সমুচিত কাজ নয়। উনারা চলে যাওয়ার আগে কি যার যার নির্বাচনি এলাকার ম্যান্ডেট নিয়েছেন, যে আমরা পদত্যাগ করছি?’

তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে মতিয়া চৌধুরীকে জাতীয় সংসদের উপনেতা করার সিদ্ধান্ত নেয় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। তিনি বর্তমানে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং সাবেক কৃষিমন্ত্রী।

সংসদ ভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের সভায় বিষয়টি উত্থাপন করেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এতে সমর্থন করেন আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের সেক্রেটারি ও জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন।

নিয়ম অনুযায়ী, সংসদ উপনেতা পদের জন্য কোনো ভোটের প্রয়োজন হয় না। সংসদ নেতা তার মতামত স্পিকারকে জানান। স্পিকার রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের জন্য পাঠান এবং বাকি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেন। এ পদের জন্য কোনো শপথ নেওয়ার দরকার হয় না। তবে সংসদ উপনেতা মন্ত্রীর পদমর্যাদা ও সুবিধা পেয়ে থাকেন।

দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকার পর সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী গত ১১ সেপ্টেম্বর মারা যান। তার মৃত্যুতে পদটি শূন্য হয়ে যায়।

সংসদীয় আইন অনুযায়ী সংসদ উপনেতা নিয়োগে বাধ্যবাধকতা নেই। বিএনপি তাদের সময়ে এ পদে কাউকে মনোনীত করেনি। তবে আওয়ামী লীগ বরাবরই তাদের সিনিয়র কোনো নেতাকে দিয়ে এ পদটি অলঙ্কৃত করেছে।

Related Articles

Stay Connected

22,878FansLike
3,682FollowersFollow
20,500SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

Latest Articles